HomeTechসোশ্যাল মিডিয়া বনাম ব্লগিং কোন ক্ষেত্রে বেশি সুবিধা পাওয়া যায়?

সোশ্যাল মিডিয়া বনাম ব্লগিং কোন ক্ষেত্রে বেশি সুবিধা পাওয়া যায়?

সোশ্যাল মিডিয়া ব্লগিং বর্তমান যুগে মানুষের মধ্যে একটা বিপ্লব সৃষ্টি করেছে যা পরবর্তী যুগে চলবে। আপনার চিন্তা ভাবনার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে কোন ওয়েবসাইট বা অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম নিজের আলাদা কোন প্লাটফর্ম তৈরি করতে হবে না এক্ষেত্রে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে নিজের মতামত এবং নিজের আবেগগুলোকে প্রকাশ করতে পারবেন খুব সহজেই। ম্যাগাজিনের মত তৈরি করতে হবে না অথবা কোন নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে না।  আপনার এই ধারণাগুলোকে সুন্দরভাবে বহিঃপ্রকাশ করার জন্য আপনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্লগিং শুরু করতে পারেন।

অনেকেই হয়তো জেনে থাকবেন সোশ্যাল মিডিয়ার মানুষের কাছে খুব দ্রুততার সাথে পৌঁছানোর একটি মাধ্যম।  আর আপনি যদি  ব্যবসায়ী হয়ে থাকেন এক্ষেত্রে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে আপনার পণ্যকে দ্রুততার সাথে সবার সামনে পৌঁছে দিতে পারবেন। এই পদ্ধতি আপনার পণ্য বা ব্র্যান্ডকে আরও আগের তুলনায় শক্তিশালী করে তুলবে এতে আপনি পরবর্তীতে আরো প্রফিট লাভ করতে পারবেন দ্রুততম সময়ে।  সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার সম্পর্কে তার জন্য আপনাকে বেশ ভালোভাবে ধারণা থাকতে হবে নয়তো আপনি আপনার ব্যবসায় ক্ষেত্রে আঘাতে পারবেন না।

এই সকলের জন্য আপনি যদি বেশ কয়েকটি মাধ্যম ফলো করেন তবে আপনি সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আপনার ব্লগকে সবার সামনে উপস্থাপন করতে পারবেন। সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে আপনার ওয়েবসাইটটি কে শেয়ার করতে পারেন এক্ষেত্রে আপনি অতিরিক্ত পরিমাণে ট্রাফিক পাবেন এবং আপনার ওয়েবসাইটে যদি আরো লেখক যুক্ত করেন অথবা যারা ব্লগিং করে তাদেরকে যুক্ত করার একটি মাধ্যম তৈরি করতে পারেন এক্ষেত্রে আপনি অতিরিক্ত পরিমাণে ট্রাফিক দ্রুততার সাথে। 

অন্যের ব্লগে কমেন্ট করে সেখানে আপনি আপনার ব্লগ সংযোজন করতে পারেন এটি একটি অন্যতম উপায় নিজের ব্লগ কে ভালো একটা পজিশনে নেয়ার জন্য। আপনি অন্যান্য ব্লগারদেরকে আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তাদেরকে প্রচারণার সুযোগ দিতে পারেন এক্ষেত্রে আরও বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন আপনি তাদের থেকে।  

এতে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে বেশ ভালো পরিমাণে ট্রাফিক আনতে পারবেন।    খুবই তাড়াতাড়ি সাথে ভালো একটা পজিশনে আপনি চলে যেতে পারবেন।   সবচেয়ে সহজ এবং ভালো পদ্ধতির মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া ব্লগিং অন্যতম। 

কোন সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করে ব্লগিং করা ভালো?

আপনার ব্যক্তিগত কারণের জন্য ব্লগিং করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি ব্লগ বা ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে পারেন।  এটি আপনার জন্য উত্তম একটি ব্যবস্থা হবে কারণ এক্ষেত্রে আপনার খরচ ও তেমন একটা বেশী হবেনা। 

ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের জন্য ব্যবহার করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি লিংকডইনের মতোই একটি প্লাটফর্ম তৈরি করতে পারেন যেখানে সকল ব্যবসায়ী কাজকর্ম প্রচলিত থাকবে এক্ষেত্রে আপনাকে অনেক পরিশ্রম করে তবে আপনার প্ল্যাটফর্ম থেকে বড় করতে হবে নয়তো খুব সহজে এত প্লেসমেন্ট শেয়ারে আপনার প্লাটফর্মে আসবে না তাই সেটিকে ঠিক সেভাবেই তৈরি করতে হবে। 

ব্লগিং এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে কি কি পার্থক্য রয়েছে?

বিষয় আসে তখন ব্লগিং এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে বেশ বড় বড় কিছু পার্থক্য রয়েছে ব্লগিংয়ে যখন আপনি লেখালেখি করবেন তখনই তিনি একতরফা হয়ে থাকবে এখানে আপনি আপনার মতামতে শুধু প্রদর্শন করতে পারবেন আপনার দৃষ্টিভঙ্গি সবাইকে দেখাতে পারবেন না।   কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষেত্রে বিভিন্নভাবে পরিলক্ষিত হয়। এটি অনেকটা মুক্তমঞ্চের মতো এখানে আপনি আপনার অনেক কিছু শেয়ার করতে পারবেন তারি সাথে একত্রে আরো অনেকেই এই সকল কিছু শেয়ার করতে পারব কিন্তু ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে এটি সম্ভব হয় না। 

সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনি আপনার দৃষ্টিভঙ্গি খুব সুন্দরভাবে ছবি ভিডিও ফুটেজ ইত্যাদি এবং অন্যান্য মানুষদের মাঝে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন এবং ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে এটি উল্টোটা হয় এখানে আপনি সেগুলো পারবেন না। 

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আপনারা সরাসরি একে অপরের সাথে কথা বলা ম্যাসেজিং করা এবং ভিডিও বাদ্রার মত সকল সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।  অধিকাংশ মানুষের কাছেই সোশ্যাল মিডিয়াকে সহজলভ্য মনে হবে কারণ এখানে তারা একই সাথে সকল ফ্যাসালিটি পাচ্ছে ব্লগিংয়ের যা পাবে না তাই মানুষের কাছে এটি সহজতর ও লাগবে। 

এখন আপনি হয়তো ভাবতে পারেন আপনার ফোনটিকে যোগদান দেওয়া উচিত দুটি ক্ষেত্রেই আলাদা আলাদা সুযোগ সুবিধা আপনি উপভোগ করতে পারবেন। তাই আপনার উপর নির্ভর করছে আপনার কোনটিতে যোগ দিবেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এবং ব্লগিং এর দুটি আলাদা এ চাহিদা রয়েছে। 

ব্লগে কি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা যায়?

যদি এটি আপনার প্রশ্ন হয়ে থাকে এর উত্তরটি হবে হ্যাঁ আপনি আপনার ব্লগে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে পারবেন।  এবং ব্লগের প্রচারণার জন্য সোশ্যাল মিডিয়ার ফেসবুক টুইটার ইনস্টাগ্রাম লিংক দেয়ার মত বড় বড় প্ল্যাটফর্ম গুলো ব্যবহার করতে পারবেন। এটি করার ক্ষেত্রে আপনি যদি অতিরিক্ত ট্রাফিক আপনার সাইটে নিতে চান এবং আপনার পোস্টটি কে ভাল একটা পজিশন এ নিতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে কিছু টপরেটেড হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করতে হবে যেগুলোতে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া এর পোস্টটি সকলের সামনে যাবে এবং ওইটা থেকে কিছু পরিমাণট্রাফিক আপনার ব্লগে চলে আসবে। 

আপনার যদি এমন একটি ব্লগ থাকে যা আপনি বিশ্বের সাথে ভাগ করতে চান তবে সামাজিক মিডিয়া এটি করার একটি দুর্দান্ত উপায়।

সোশ্যাল মিডিয়া ব্লগের উদাহরণ

অনেক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করে আপনি ব্লগ চালু করতে পারেন। তবে এই ক্ষেত্রে এ ব্যাপারে বাফার এর সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম টি ব্যবহার করে আপনি বেশি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। থেকে আপনি আপনার ব্যবসাকে আরো বৃদ্ধি করার জন্য সকল প্রকার টিপস এবং কলাকৌশলগুলো এখানে খুব সহজেই পেতে পারবেন কারণ এখানে যারা থাকে তারা বেশিরভাগই ব্যবসায়ীর মানসিকতার হয়ে থাকে এবং ব্যবসায়ী কাজকর্ম করে থাকে।

Hootsuite’s ততটা জনপ্রিয় নয় কিন্তু আপনি আপনার ব্যবসায়িক কাজে এটিকে ব্যবহার করতে পারেন কারন এখানে আপনি পাবেন নতুন নতুন কলা-কৌশলের ধারণা। অনেকেই আছে যারা সোশ্যাল মিডিয়াকে মনে করে শুধু আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব এবং নিকটস্থ ব্যক্তিদের খোঁজখবর নেওয়ার জন্য একটি মাধ্যম শুধু মূলত এটি আপনার ভুল ধারণা কারণ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে নিত্যদিনের যাবতীয় সকল কাজ করা যায় যেগুলো অনলাইনে করা সম্ভব। আর যারা ব্যবসায়ী কর্মক্ষেত্রের জড়িত ব্লগ করে থাকে তাদের জন্য এটি আরও একটি সুযোগ কারণ এই সকল মাধ্যম থেকে তারা অতিরিক্ত পরিমাণে তাদের ব্যবসাকে সামনের দিকে অগ্রসর করতে পারবে। 

প্রথমের দিকে আপনাকে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে আপনি কয়টি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এর সক্রিয় রয়েছেন। যদি কম সংখ্যক প্লাটফর্মে সক্রিয় থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এর ক্ষেত্রটা আরো বিস্তার করার জন্য আরও বেশকিছু প্ল্যাটফর্মের যোগদান করুন। এবং আপনার করা পোস্ট গুলো এবং সাম্প্রতিক করা পোস্টগুলো দ্রুততার সাথে সকল সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম শেয়ার করে চেষ্টা করবেন হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহার করে,  এতে আপনার সবার সংখ্যা বাড়তে থাকবে এবং আপনার ব্লগে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিজিটর প্রবেশ করবে।  তাছাড়া এটি যদি কোন প্রকারের পণ্য হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে আপনার এই প্রোডাক্টটি আরোও বিস্তার লাভ করবে যার ফলে এর ক্রয় ক্ষমতা আরো বেড়ে যাবে। 

এখন আপনার মূল কাজ হবে সকল ব্লগারের সাথে ভালো সম্পর্ক যুক্ত করা এবং সকলের সাথে ভালো বৃহৎ করা যাতে করে আপনার নিত্যনতুন কলাকৌশলগুলো হোক তারা জানতে পারে এবং তাদের কলাকৌশলগুলো আপনি জানতে পেরে সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারেন। এবং একই কাজগুলো করবেন সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রেও। আপনার নির্দিষ্ট একটি ফ্যান ফলোয়ার তৈরি করতে পারেন তবেই আপনার সোশ্যাল মিডিয়া বলেন ব্লগার বলেন দুই ক্ষেত্রেই আপনি সফলতা অর্জন করতে পারবেন। 

 

RELATED ARTICLES

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular